You Are Here: Home » পর্যটন কেন্দ্র » প্রাকৃতিক ঝর্না » পরিকুন্ড ঝর্না

পরিকুন্ড ঝর্না

আমরা কমবেশী সবাই মাধবকুন্ড জলপ্রপাতের নাম শুনেছি। শুধু শুনেছি বললে ভূল হবে, যারা ভ্রমন করতে পছন্দ করেন তারা অন্তত একবার হলেও মাধবকুন্ড থেকে বেড়িয়ে এসেছেন। মাধবকুন্ড এবং এর আশেপাশের সৌন্দর্য বর্ননা করার প্রয়োজন নেই। চোখ ধাঁধানো সুন্দরের সাথে আমরা মোটামুটি সবাই পরিচিত। কিন্তু অনেকেই হয়তো জানি না যে মাধবকুন্ড জলপ্রপাতের খুব কাছেই লুকিয়ে আছে আর এক বিস্ময়, একটি বুনো ঝর্না- পরিকুন্ড জলপ্রপাত।

সবুজে আবৃত আর পাহাড়ে ঘেরা এই জলপ্রপাতটি সিলেট বিভাগের মৌলবিবাজার জেলায় অবস্থিত। মাধবকুন্ড জলপ্রপাত হতে মাত্র ১০-১৫ মিনিট হাটার পথ। তার পরেই পেয়ে যাবেন নিরবে নিভৃতে ঝরে পরা এই দৃষ্টিনন্দন ঝর্নাটি। তেমন কোন পর্যটক এখানে যায় না বলে ঝর্না এলাকাটি নিরবই থাক সারা বছর। বিভিন্ন প্রজাতির গাছপালায় আচ্ছাদিত হয়ে আছে ঝর্নার চারিপাশ, যেন সবুজের মেলা বসেছে এখানে। আর ঝর্নার ঝরে পড়ার শো শো শব্ধ সে মেলাকে দিয়ে ভিন্ন সুর। ঝর্নার শব্ধ আর পাখির কলতানই এখানে কেবল এখানে নিশব্ধতার ঘুম ভাঙ্গায়। প্রায় ১৫০ ফুট উচু হতে পাথরের খাড়া পাহাড় বেয়ে শোঁ শোঁ শব্দ করে জলধারা নিচে আছড়ে পড়ছে। নিচে বিছানো পাথেরের আঘাতে পানির জলকনা বাতাসে উড়ে উড়ে তৈরি করছে কুয়াশা। ঝিরি ঝিরি সে জলকনা চারিপাশের পরিবেশকে যেমন শীতল করে তেমনি সিক্ত করে প্রকৃতিকে। ঝর্নার পানি নিচে পড়ে ছোট বড় পাথরের ফাঁক গলিয়ে মিশে যাচ্ছে বড় একটি ছড়াতে গিয়ে। এমন দৃশ্য কেবল হয়তো কল্পনায়ই দেখা যায়। ঝর্নার সম্মুখের বড় পাথরে বসে বসে আনমনে সে দৃশ্য দেখলে হয়তো স্বপ্ন ভেবে ভুল করতে পারেন। কিন্তু এটাই সত্য ।

আপনি চাইলে ঝর্নার স্বচ্ছ পানিতে দুহাত বাড়িয়ে নিজেকে বিলিয়ে দিতে পারেন জলস্নানে। সে এক সুখজাগানিয়া অনুভুতি। মাধবকুন্ড হতে পরিকুন্ড আসার পথটা একটু পাথুরে ও জলময়। তবে ভয়ের কিছু নেই, কেবল পায়ের পাতাই ভিজবে। আপনাকে হাঁটতে হবে ছড়া বরাবর। পুরোটা ছড়া পাথর বিছানো। পাথরগুলো সবসময় ভিজে থাকে বলে বেশ পিচ্ছিল। তাই সাবধানে হাটতে হবে। যারা মাধবকুন্ড বেড়াতে যেতে চান তাদের জন্য এটি একটি বাড়তি পাওয়া। খুব অল্প বিস্তর লোক এখানে ঘুরতে যায়। আপনিও হতে পারেন তাদের একজন।

কিভাবে যাবেন

প্রথমেই আপনাকে আসতে হবে সিলেট, মৌলবিবাজার কিংবা কুলাউড়া। বাসে করে আসতে পারেন এখানে। ঢাকা হতে সরাসরি বাস আসে এসব স্থানে। অথবা ট্রেনে করে যেতে পারেন সিলেট বা কুলাউড়া। সবচাইতে সহজ পথটি হল ট্রেনে করে কুলাউড়া আসা। ট্রেনে কুলাউড়া ষ্টেশনে নেমে সিএনজি চালিত অটোরিকশা ভাড়া করে সরাসরি মাধবকুন্ড পৌছাতে পারেন। এতে আপনার খরচ ও পরিশ্রম কম হবে। কুলাউড়ায় নেমে বাসে করেও যেতে পারেন। সে ক্ষেত্রে আপনাকে কাঁঠালতলী বাজারে নামতে হবে। সেখান থেকে অটোরিকশায় মাধবকুন্ড। দুরত্ব আট কিলোমিটার। এখানে পৌছে টিকেট কেটে মাধবকুন্ড এলাকায় প্রবেশ করে সোজা মাধবকুন্ড ঝর্না গামী রাস্তা ধরে হাটতে হবে। কিছু দুর গেলে মাধবকুন্ড ঝর্নার ঠিক আগে বাঁ হাতে একটি শিব মন্দির রেয়েছে। এর বিপরীত দিকে একটি রাস্তার পাশে নতুন একটি সিড়ি হয়েছে। ঐ সিড়ি ধরে নেমে গেলে মাধবকুন্ড ঝর্না হতে বয়ে আসা পানির ছড়া। আর ওই ছড়াটির সোজাসুজি পাথর বিছানো ছড়া দিয়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট হাটলেই পরিকুন্ড জলপ্রপাত। পথ চিনতে কষ্ট হলে স্থানীয় লোকজন কিংবা পর্যটন কর্মকর্তাদের জিজ্ঞেস করলে আপনাকে যাবার পথ বলে দিবে।

কোথায় থাকতে পারেন

সিলেট কিংবা মৌলবিবাজার থাকতে চাইলে সেখানে ভাল মানের অনেক হোটেল আছে। আর যদি আপনি ঝর্নার আশে পাশে থাকতে চান তবে জেলা পরিষদের দুই কক্ষের একটি বিশ্রামাগার আছে। এখানে আপনি রাত্রি যাপন করতে পারেন। তবে সে ক্ষেত্রে আপনাকে কমপক্ষে ৭ দিন আগে থেকে বুকিং দিতে হবে। না হলে বুকিং পাওয়া প্রায় অসম্ভব।

© 2011-2013 Powered By BDTRAVELNEWS.COM

Scroll to top