You Are Here: Home » পর্যটন কেন্দ্র » সমুদ্র সৈকত » সেন্ট মার্টিন

সেন্ট মার্টিন

 

 

বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিনে বঙ্গপসাগরের মাঝে অসংখ্য প্রবাল রাশি মিলে মিশে একাকার হয়ে তৈরি করেছে দেশের একমাত্র প্রবালদ্বীপ সেন্ট মার্টিন। সাগরের সুনীল জলরাশি আর নারিকেল গাছের সারি এই দ্বীপকে দিয়েছে অপার সৌন্দর্য। প্রকৃতি দু হাত মেলে সৌন্দর্য ঢেলে দিয়েছে এখানে। বালুকাময় সৈকত, প্রবালের প্রাচীর আর কেয়া গাছের সারি এই দ্বীপকে দিয়েছে আলাদা এক বৈশিষ্ট যা আর কোথাও নেই। উত্তাল সাগরের নোনা জল যখন আছড়ে পরে কেয়া গাছের ফাকে, ঝিরি ঝিরি বাতাসে তৈরি হয় সফেদ ফেনা, সে এক মাতাল করা দৃশ্য। রাতের জোৎসনা এসে যখন লুটোপুটি খায় চিকচিকে বালুর বুকে, নীল আকাশ তখন আরও নীলাভ হয়। ছুনছান নিরব রাতে চারিদিকে শুধু সাগরের হুংকার আর ঢেউ এর আছড়ে পড়ার গর্জন। অপূর্ব, অসাধারণ, অদ্ভুত সুন্দর, অসহ্য সুন্দর। হাজারো জোৎসনা রাতের চেয়েও সুন্দর সেন্ট মার্টিনের একটি নির্ঘুম চাঁদনী রাত, এখানে সময়ের কাটা এগিয়ে চলে কিন্তু সৌন্দর্য পিপাসার তৃষ্ণা মেটে না।

অসংখ্য নারিকেল গাছ, কেয়া গুল্ম আর সবুজ বনানী এই দ্বীপকে দিয়েছে ভিন্ন মাত্রা। পুরো দ্বীপ ঘুরলে মনে হবে নারিকেল বাগান এটি। আপনি চাইলে অর্থের বিনিময়ে তৃষ্ণা মেটাতে পারেন নারিকেল জলে। এখানে হাজার তিনেক স্থানীয় লোকজন বসবাস করে। সিংহভাগই মুসলমান। খুবই ধার্মিক ও সহজ সরল প্রকৃতির মানুষ এরা। তাই কোন প্রকার চুরি ছিনতাই এর সম্ভাবনা নেই এখানে। গভীর রাত পর্যন্ত আপনি জোৎসনা স্নান করতে পারেন নির্বিঘ্নে।

এটি সত্যিই একটি ভিন্ন প্রকৃতির দ্বীপ। এর একদিকে যেমন প্রবাল প্রাচীর ঘিরে রেখেছে, অন্যে দিকে বালুকাময় সৈকত প্রহর গুনছে আপনার অপেক্ষায়। সমুদ্রজলে অনায়েসেই আপনি করে নিতে পারেন স্নান কাজটি। এই সৈকতের লাল কাকড়া আর নুরি পাথর আপনাকে নিঃসন্দেহে আকৃষ্টে করবে। অবচেতন মনেই আপনি কুড়িয়ে নিবেন বিভিন্ন রং এর আর ঢং এর নুরি পাথর সাথে ঝিনুক খন্ড।

টেকনাফ হতে সেন্ট মার্টিন যাত্রাপথটি মন্দ নয়। গাংচিল আর ডলফিন দেখতে দেখতে এই ২ ঘন্টার ভ্রমনটি আপনি মুহুর্তেই কেটে যাবে। আর দুর সাগরের নীলাভ অথৈ পানির মাঝে যখন সবুজে ঢাকা দ্বীপটি আপনার দৃষ্টিগোচর হবে সারা রাতের দীর্ঘ ভ্রমনের ক্লান্তি দুর হয়ে যাবে নিমিষেই। দ্বীপটি যতই কাছে আসতে থাকে আপনার ব্যকুলতা ততই বাড়তে থাকবে। ইচ্ছে করবে যেন সাগরে ঝাপ দিয়েই চলে চাই সৈকতে। দ্বীপে পা দিয়েই বুঝতে পারবেন এটিকে নিয়ে মানুষ কেন এত মাতামাতি করে, কেনইবা একে বলা হয় সুন্দরের লীলাভূমি। বাংলাদেশে যতগুলো দৃষ্টনন্দন পর্যটন এলাকা রয়েছে সেন্ট মার্টন তার ভীতর অন্যতম ও নান্দনিক। দ্বীপটি দৈর্ঘে প্রায় ৮ কিলোমিটার এবং প্রস্থে কোথাও ৭০০ মিটার আবার কোথাও ২০০ মিটার। সেন্ট মার্টিন্সের পশ্চিম-উত্তর-পশ্চিম দিক জুড়ে রয়েছে প্রায় ১০-১৫ কিলোমিটার প্রবাল প্রাচীর। দ্বীপের শেষ মাথায় সরু লেজের মত আর একটি অবিচ্ছিন্ন দ্বীপ রয়েছে যার নাম ছেঁড়াদ্বীপ। জোয়ারের সময় পানি এসে এটিকে মূলদ্বীপ হতে বিচ্ছিন্ন করে বলেই এর নামকরন করা হয়েছে ছেঁড়াদ্বীপ। ভাটার সময় পানি নেমে গেলে এটি আবার মূলদ্বীপের সাতে সংযুক্ত হয়ে যায়। তখন পায়ে হেটেই চলে যাওয়া যায় সেখানে। এখানে কোন লোক বসতি নেই। এই অংশটি একেবারেই প্রবালময়। এখানে স্বচ্ছ জলের নীচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে হাজারো ধরনের প্রবাল। নানান রংয়ের মাছেরা খেলা করে প্রবালের ফাকে। সত্যিই সে এক দেখার মত দৃশ্য।

এখানে থাকার জন্য বেশ কয়েকটি হোটেল মোটেল ও কটেজ রয়েছে। ব্লুমেরিন, অবকাশ পর্যটন সহ বেশ কয়েকটি উন্নতমানের হোটেল রয়েছে। কটেজগুলোও চমৎকার। কটেজের বারান্দায় বসে চা খেতে খেতেই উপভোগ করতে পারবেন সাগরের মায়াবীরূপ। এখানে বিদ্যুতের কোন ব্যবস্থা নেই। জেনারেটর ও সৌর বিদ্যুতই একমাত্র ভরসা। এখানে একটি মাত্র বাজার রয়েছে জাহাজ ঘাটে। রয়েছে অনেকগুলো খাবার হোটেল। এখানকার তাজা রুপচাঁদা মাছের ফ্রাই আপনার জ্বীভে জল আনবেই। আপনি চাইলে জেলেদের কাছ থেকে তাজা মাছ কিনে এনে হোটেলে ভেজে নিতে পারেন। আর একটি বিখ্যাত জিনিস এখানে পাবেন, সেটা হলো শুটকী। নানান প্রজাতী মাছের হরেক রকম শুটকী এখানে পাওয়া যায়। খুব সহজে ও সুলভ মূল্যে এখান হতে শুটকী সংগ্রহ করতে পারেন।

এখানে দুই ধরনের পর্যটক বেড়াতে আসে। কেউ কেউ সেন্ট মার্টিন এসে ঐদিনই ফিরে যায়। আবার কেউ কেউ রাত্রি যাপন করে। যারা দিনাদিনই চলে যায় তাদের দেখার সুযোগ খুব কম। কিন্তু যারা রাত্রিযাপন করেন তাদের জন্য রয়েছে অপার সুযোগ।

ইতিহাস

সেন্ট মার্টিন দ্বীপ স্থানীয় ভাবে জাজিরা বলে পরিচিত। এক সময় এই দ্বীপটি ছিল একটি বিশ্রামাগারের মত। বিভিন্ন দেশের বনিক রা বিশেষ করে আরব বনিকরা পন্য নিয়ে যখন সওদা করতে যেতো তখন তারা এই দ্বীপে বিশ্রাম নিত। তখন থেকেই এই দ্বীপের নাম হয় জাজিরা। তবে পরবর্তীতে এটি নারিকেল জিনজিরাও বলে পরিচিতি লাভ করে। অসংখ্য নারিকেল গাছের সমারোহ থাকায় এই দ্বীপকে এই নামে ডাকা হয়ে থাকে। সর্বশেষে ইংরেজরা এই দ্বীপটির নাম করন করে সেন্ট মার্টিন এবং দেশ বিদেশের মানুষের কাছে এখন পর্যন্ত এই নামেই পরিচিত। তবে সাহিত্যের ভাষায় দারুচিনির দ্বীপ নামটিও বেশ পরিচিত ও জনপ্রিয়।

আসেপাশের দর্শনীয় স্তান গুলো হচ্ছে

ছেঁড়াদ্বীপ

সেন্টমার্টিন দ্বীপের দক্ষিনপাশের শেষ মাথায় সরু লেজের মত আর একটি অবিচ্ছিন্ন দ্বীপ রয়েছে যার নাম ছেঁড়াদ্বীপ। জোয়ারের সময় পানি এসে এটিকে মূলদ্বীপ হতে বিচ্ছিন্ন করে বলেই একে ছেঁড়াদ্বীপ বলা হয়। ভাটার সময় পানি নেমে গেলে এটি আবার মূলদ্বীপের সাতে সংযুক্ত হয়ে যায়। তখন পায়ে হেটেই চলে যাওয়া যায়। সেখানে। এখানে কোন লোক বসতি নেই। এই অংশটি একেবারেই প্রেবালময়। তবে মাঝে মাঝে লতাগুল্ম ও কেয়া গাছের ঝোপ দেখা যায়। এখানে স্বচ্ছ জলের নীচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে হাজারো ধরনের প্রবাল। নানান রংয়ের মাছেরা খেলা করে প্রবালের ফাকে। সত্যিই সে এক দেখার মত দৃশ্য।

সেন্ট মার্টিনের মূল অংশ হতে ট্রলার বা স্পীড বোটে করে এখানে আসা যায়। তবে কারো যদি অদম্য শক্তি থাকে তবে সে পায়ে হেটেও আসতে পারেন। সময় লাগবে প্রায় ২ ঘন্টা। তবে ট্রলারে করে দ্বীপের পাশ ঘেষে আসাটাই শ্রেয়। আসতে আসতে চোখে পরবে দ্বীপের দৃশ্যাবলী। প্রায় ৩০ মিনিট লাগে ট্রলারে কর আসতে। ছেড়া দ্বীপ আসতে চাইলে খুব সকাল করে ঘুম ঠেকে উঠে ট্রলার নিয়ে রওয়ানা দিতে হবে। না হলে পূর্ন জোয়ার হলে দ্বীপটিকে আর ভাল ভাবে দেখা যায় না।
সকালের ছেঁড়াদ্বীপ আর বিকেলের ছেঁড়াদ্বীপ একেবারেরই ভন্ন। সকাল বেলাটা এখানে বেশ লোকারণ্য ও মেলার মত ঝাকজমক থাকে। অসংখ্য পর্যটকের সমাগম থাকে এখানে। বিভিন্ন পন্যের পসরা নিয়ে দোকানীরা বসে থাকে এখানে সকাল হতেই। ডাব আর কোমল পানীয় যেমন আছে তেমন আছে কাকড়া আর ফ্লায়িং ফিস ফ্রাই। অসাধারণ স্বাদ। এই স্বাদ না নিয়ে আসাটা এক রকম বোকামীই হবে।

মাথিন কুপ

টেকনাফ শহরের প্রান কেন্দ্রে নাফ নদীর পাশে টেকনাফ পুলিশ ফাঁড়ির চত্তরে এই মাথিনের কূপ। ঐতিহাসিক কারনে এটি আজ দর্শনীয় স্থানে পরিনত হয়েছে। এই কুপের পেছনে রয়েছে একটি মর্মান্তিক প্রেম কাহিনী।

আঠার দশকের শেষের কথা। সেই সময় টেকনাফে সুপেয় পানির খুব অভাব ছিল। টেকনাফ থানা প্রাঙ্গনে একটি মিষ্টি পানির কুপ ছিল। এটিই ছিল সমগ্র টেকনাফে একটি মাত্র কূয়া। প্রতিদিন তরুনীরা পাতকূয়ায় জল নিতে আসতেন। ধীরাজ ভট্টাচার্য কোলকাতা হতে এখানে বদলি হয়ে আসেন। এটি ছিল রাখাইন উপজাতী এলাকা। অন্যান্য রাখাইন তরুনীদের সাথে রাখাইন জমিদার কন্যা মাথিন ও জল নিতে আসতো। এভাবে জতেল আনার ছলে এক সময় ধীরাজের সাথে মাথিনের প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়। দুজনে বিয়ে করারও সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু হঠাৎ করে কোলকাতা থেকে চিঠি আসে ধীরাজের কাছে যে তার বাবা অসুস্থ। তাকে যেতে হবে। কিন্তু মাথিন তাতে রাজি ছিলো না । তার ধারনা ছিল পরদেশী বাবু চলে গেলে আর হয়তো ফিরে আসবে না। কিন্তু ধীরাজকে যেতে হবে। তাই সে মাথিনকে না জানিয়ে কোলকাতা চলে যায়। মাথিন ভীষন কষ্ট পায় এবং নাওয়া খাওয়া ছেড়ে দেয়। কোন ভাবেই তাকে বোঝানো যাচ্ছিল না। এক সময় সে মৃত্যুর কোলো ঢলে পড়ে।

পরবতীর্তে তাদের প্রেমের আত্বত্যাগের নিদর্শন হিসেবে পুলিশ প্রশাসন এই জায়গাটি সংরক্ষন করে এটিকে “মাথিনের কূপ” হিসেবে নাম করন করেন। ২০০৬ সালে ধীরাজ-মাথিনের ইতিহাসের প্রায় ৮০ বছর পর, টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জনাব খালেদ হোসেন, সাংবাদিক আব্দুল কুদ্দুস রানা কে সাথে নিয়ে এই কূপটির সংস্কার করেন এবং এটিকে একটি দর্শনীয় স্থান হিসেবে পরিচিতি দেন।

কালো রাজার সুরঙ্গ

এটি টেকনাফে অবস্থিত রহস্যময় একটি গুহা। বর্তমানে মানুষের আগ্রহের কারনে এই গুহা একটি ভাল মানের পর্যটন কেন্দ্রে পরিনত হয়েছে। এখানে যেতে হলে আপনাকে বাসে করে হেইখং বাজারে নামতে হবে। তার পর পায়ে হেঁটে যেতে হবে প্রায় ৬ কিলোমিটার পথ। এখানে বনবিভাগের তৈরি ৪ কিলোমিটার দীর্ঘ পথ পাড়ি দেবার পর কাঁচা রাস্তায় হাটতে হবে আরো ২ কিরোমিটার। এটি মূলত ঝিরি বা পাহাড়ী নালা পার হয়ে পৌছতে হবে কালো রাজার গুহায়।

কিভাবে যেতে পারেন

অনেক ভাবেই পৌছানো যায় সেন্টমার্টিন দ্বীপ। এখানে যেতে হলে প্রথমেই যেতে হবে টেকনাফ জাহাজ ঘাটে। ঢাকা, চট্ট্গ্রাম এবং কক্সবাজার থেকে বাস বা মাইক্রোবাসে করে যাওয়া যাবে ৯ কিমি.। টেকনাফের জাহাজ ঘাটে গিয়ে আপনাকে সীট্রাকের টিকেট কাটতে হবে। টেকনাফ হতে সেন্টমার্টিনের দুরত্ব। উত্তাল সমুদ্র পাড়ি দিয়ে যেতে হয় এখানে। শীত মৌসুমে সাগর শান্ত থাকে তাই এই সময় এখানে যাওয়া অনেক বেশী নিরাপদ। এই পর্যটন মৌসুমে এখানে টেকনাফ হতে সেন্ট মার্টিন পর্যন্ত কেয়ারী সিন্দবাদ সহ বেশ কয়েকটি সী-ট্রাক চলাচল করে। সকাল ১০ টায় এই নৌযানটি সেন্ট মার্টিনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় এবং বিকাল ৩ টায় ফিরে আসে। তবে এছাড়াও ট্রলার ও স্পীড বোটে করে যাওয়া যায় সেন্ট মার্টন। সী ট্রাক গুলো এপ্রিল মাস পর্যন্ত চলাচল করে। এর পর বৈরি আবহাওয়ার কারনে প্রশাসন একে চলতে দেয়না। তবে যারা বৈরি মৌসুমে এডভেঞ্চার হিসেবে যেতে চান সেন্টমার্টিন তারা ট্রলার ভাড়া করে যেতে পারেন। তবে এই যাত্রাটি খুব একটা নিরাপদ নয়। সাধারণত দুর্ঘটনা ঘটে না, তবে ঘটে যেতে পারে। তাই সাবধান। কিন্তু উত্তাল সাগরের প্রকৃত রূপ দেখা কিংবা নির্জন দ্বীপে বসে বৃষ্টিস্নান করার লোভ যারা সামলাতে না পারেন তাদের জন্য ট্রলার ছাড়া বিকল্প কোন ব্যবস্থা আর নেই।

© 2011-2013 Powered By BDTRAVELNEWS.COM

Scroll to top