প্রাকৃতিক সৌন্দয্যের লীলাভূমি মৌলভীবাজার Reviewed by Momizat on . প্রাকৃতিক সৌন্দয্যে লীলাভূমি মৌলভীবাজার জেলা। এখানে সুন্দয্যের মায়া হাত ছানি দিয়ে ডাকে প্রকৃতি পাগল পর্যটকদের।মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলা রয়েছে বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দয্যে লীলাভূমি মৌলভীবাজার জেলা। এখানে সুন্দয্যের মায়া হাত ছানি দিয়ে ডাকে প্রকৃতি পাগল পর্যটকদের।মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলা রয়েছে বাংলাদেশের Rating: 0
You Are Here: Home » ভ্রমন কাহিনী » প্রাকৃতিক সৌন্দয্যের লীলাভূমি মৌলভীবাজার

প্রাকৃতিক সৌন্দয্যের লীলাভূমি মৌলভীবাজার

Lawachara National Parkপ্রাকৃতিক সৌন্দয্যে লীলাভূমি মৌলভীবাজার জেলা। এখানে সুন্দয্যের মায়া হাত ছানি দিয়ে ডাকে প্রকৃতি পাগল পর্যটকদের।মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলা রয়েছে বাংলাদেশের অর্পূব ও সুন্দরতম স্থান।

madhobkundaলাউয়াছডা জাতীয় উদ্যান, মাধরপুর লেক, চা বাগান, রাবার বাগান, আনারস বাগান, রয়েছে অসংখ্য পাহাড়, বন- জঙ্গল, প্রাকৃতিক ঝরনা ও হামহাম ঝরনা” যা না দেখলে বিশ্বাস করার মত নয়, আর আছে বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান এর সমাদী।

লাউয়াছডা জাতীয় উদ্যান: আয়তন ১২৫০ হেক্টর, জাতীয় উদ্যান হিসেবে ঘোষনার তারিখ ৭ জুলাই ১৯৯৬ইং।

ঢাকা- মৌলভীবাজার মেইন রোড়ের যাওয়ার সময় হাতের বাম পাশে এর অবস্থান, ঢাকা থেকে ২২০ কি: মি।

Lawachara National Park (1)দিনে যাওয়ার সময আপনার নজর কাটবে চা বাগান, রাবার বাগান, ছোট বড় অনেক পাহাড। পাহাডী আঁকা-বাকাঁ পথ বয়ে নিয়ে যাবে লাউয়াছডা জাতীয় উদ্যান।

tea-gardenপ্রবেশে অসংখ্য সারিসারি গাছ চারপাশে গহীন বন, নীরবতা পাবেন অসংখ্য পাখি কলকাকরি। রয়েছে প্রাকৃতিক ঝরণা, যত যাবেন নিজেকে হারাবেন প্রকৃতির কাছে।

লাউয়াছডা জাতীয় উদ্যানে দেখতে পাবেন: উদ্ভিব প্রজাতির মধ্যে রয়েছে চাপালিশ, ঢেউয়া, লটকন, আগর, পিতরাজ, কদম, ছাতিয়ান, কড়ই, শিমুল, চিকরাশি, হারগজা, গর্জন, জলপাই, নাগেশ্বর, ডুমুর, বট, গামার, কাউ, চালমুগড়া, জারুল, রকতন, চালতা, চাম্পাফুল, উদল, আমলকি, হরিতকি, বহেরা, জাম, অর্জুন, সেগুন, তুন, আওযাল, লোহাকাঠ ও বিভিন্ন্ প্রজাতির অর্কিড, বাঁশ ও বেত।

বণ্যপ্রানী: প্রাণীদের মধ্যে রয়েছে- উল্লুক, লজ্জাবতি বানর, হনুমান, বানর, শুকর, মায়া হরিণ, খরগোশ, কাঠবিড়াল, সজারু, ভাল্লুক বাঘডাস, মেছোবাগ, বেজি, শিয়াল, বাদুর, বনমোরগ, পেঁচা, মাছরাঙ্গা, বউকথাকও, কোকিল, টিয়া, ময়না, অজগর, রাজগোখরো, দারাশ, কাল কেউটে, লাউডগা, দুধরাজ, কালনাগীন ও বিভিন্ন প্রজাতির ব্যাঙ ও কচ্ছপ।

জীব- বৈচিত্র্য: লাউয়াছডা জাতীয় উদ্যানে ৪৬০ প্রজাতির জীব-বৈচিত্রের মধ্যে ১৬৭প্রজাতির উদ্ভিব, ৪ প্রজাতির উভচর, ৬ প্রজাতির সরীসৃপ, ২৪৬ প্রজাতির পাখি এবং ২৫ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী দেখা যায়।

লাউয়াছডা  জাতীয় উদ্যানকে চির-হরিৎ বন হিসেবে ঘোষনা করা হয়েছে।

বনে প্রবেশের সময় যা করণীয় বনের ভীতরে নীরবতা পালন করা, প্রাকৃতিক উপলদ্বি করা।

বনের মধ্যে প্রবেশ সময় জনপ্রতি ২০ টাকা, ছাত্র- ১০ টাকা।

থাকার জন্য বন থেকে একটু দূরে পাবেন হোটেল, গেস্ট হাউস, রির্সোট

ঘুরে আসার জন্য আপনি ট্যুর অপারেটরেরও সাহায্য নিতে পারেন অথবা ঢাকা থেকে শ্রীমঙ্গল গামী যে কোন গাড়ী করে লাউয়াছডা জাতীয় উদ্যান যেতে পারেন।

তানজির হোসেইন

© 2011-2013 Powered By BDTRAVELNEWS.COM

Read previous post:
রিছাং ঝর্ণা ,আলুটিলার রহস্যময় গুহা ও অপু ঝর্ণা

পাহাড়, ঝর্ণা আর পাহাড়ি নদী ভ্রমণের আয়েশি ট্রিপের কথা চিন্তা করলে এই রুটের কথাই সর্বপ্রথম মনে আসে ভ্রমণ পিপাষুদের।ভ্রমণ পাগল,...

Close
Scroll to top