মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানের যাত্রী! Reviewed by Momizat on . মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট ৩৭০ বিমানটি যে ভারত মহাসাগরেই বিদ্ধস্ত হয়েছে তা এক প্রকার নিশ্চিত।মহাসাগরের এখানে ওখানে ভেসে বেড়াচ্ছে কেবল অসংখ্য ধ্বংসাবশেষ। তবুও মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট ৩৭০ বিমানটি যে ভারত মহাসাগরেই বিদ্ধস্ত হয়েছে তা এক প্রকার নিশ্চিত।মহাসাগরের এখানে ওখানে ভেসে বেড়াচ্ছে কেবল অসংখ্য ধ্বংসাবশেষ। তবুও Rating: 0
You Are Here: Home » বিমানের খবর » মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানের যাত্রী!

মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানের যাত্রী!

Malaysiaমালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট ৩৭০ বিমানটি যে ভারত মহাসাগরেই বিদ্ধস্ত হয়েছে তা এক প্রকার নিশ্চিত।মহাসাগরের এখানে ওখানে ভেসে বেড়াচ্ছে কেবল অসংখ্য ধ্বংসাবশেষ। তবুও বিমানটির ভেতরে থাকা ২৩৯ যাত্রীর মধ্যে কেউ না কেউ বেঁচে রয়েছে বলে বিশ্বাস করে মালয়েশিয়া।

শনিবার বিমানটির নিখোঁজ চীনা যাত্রীদের স্বজনদের সঙ্গে বৈঠকে তাদের সান্তনা দিতে গিয়ে মালয়েশিয়ার ভারপ্রাপ্ত পরিবহন মন্ত্রী হিসামুদ্দিন হুসেইন এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন, ‘কেউ হয়তো মনে করবেন এটা দুরাশা। কিন্তু আমরা আশা রাখি যে অন্তত কয়েকজন প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন। তাদের খোঁজ না পাওয়া পযন্ত আমরা শুধুই প্রার্থনা করে যেতে পারি। নিখোঁজদের পরিবারের প্রতি আমাদের পূর্ণ সহানুভূতি রয়েছে।’ অথচ এই সপ্তাহের শুরুতে মালয়েশিয়া সরকারই ঘোষণা করেছিল যে, ২২৭ জন যাত্রী এবং ১২ জন বিমানকর্মীর কেউই আর বেঁচে নেই।

তবে মালয়েশিয়া কর্তৃপক্ষের আশাবাদে মোটেও তুষ্ট হচ্ছে না বিমানটির নিখোঁজ চীনা যাত্রীদের স্বজনরা। তারা মালশিয়া এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষের কাছে বিমানটি বিদ্ধস্ত হওয়া সম্পর্কে জবাবদিহি চেয়েছে।

এদিকে দক্ষিণ ভারত মহাসাগরে, নতুন সম্ভাব্য দুর্ঘটনাস্থলে সাদা, লাল ও কমলা রঙের তিনটি ভাসমান বস্তুকে চিহ্নিত করেছে চীনের একটি বিমান। তবে এগুলিকে এখনো শনাক্ত করা যায়নি। শনিবারের তল্লাশিতে যোগ দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, চীন ও জাপানের মোট আটটি বিমান ও সাতটি জাহাজ। এর মধ্যে চিনের সামুদ্রিক সুরক্ষা সংস্থা এবং চীনা নৌবাহিনীর একটি করে জাহাজ ওই একই স্থানে অনুসন্ধান চালাচ্ছে।

অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবট সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, র্পাথে তাদের নৌবাহিনীর একটি জাহাজে বিমানটির ব্ল্যাক বক্স খোঁজার যন্ত্র বসানো হবে। তারপর জাহাজটিকে অনুসন্ধানস্থলে নিয়ে যাওয়া হবে। যদিও ব্ল্যাক বক্সের ব্যাটারির আয়ু মাত্র একমাস। অর্থাৎ আগামী ৭ এপ্রিলের মধ্যে সেটি পাওয়া না গেলে বিমানের ককপিটের ঘটনাবলির শেষ দুই ঘণ্টার বিবরণ চীরকালের মতো সমুদ্র গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ কুয়ালালামপুর থেকে ২৩৯ যাত্রী ও ক্রু নিয়ে বেইজিং যাওয়ার পথে মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট-৩৭০ রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়।

© 2011-2013 Powered By BDTRAVELNEWS.COM

Read previous post:
মেড্ডার কালভৈরব মূর্তি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হিন্দু সম্প্রদায়ের গুরত্বপূর্ণ তীর্থস্থান মেড্ডার কালভৈরব মূর্তি। এটি বৃহত্তম শিবমূর্তি হিসেবেও বিখ্যাত। প্রায় দু’শ বছরর পূর্বে দুর্গাচরণ আচার্য নামক...

Close
Scroll to top